আজ ঠাকুরগাঁও জাটিভাঙ্গা গণহত্যা দিবস

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজ ২৩ এপ্রিল ঠাকুরগাঁও গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে শুখানপুখুরী জাঠিভাঙ্গায় তিন হাজারেরও বেশি সাধারণ মানুষকে হত্যা করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী।

শহীদদের স্মরণে প্রতিবছর দিনটিকে যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে পালন করা হয়।

স্থানীয়রা মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ এর ২২ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনী চারদিকে মানুষ হত্যা করছে- এমন খবর পেয়ে ঠাকুরগাঁওয়ের জগন্নাথপুর, চকহলদি, সিঙ্গিয়া, চণ্ডিপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার নারী-পুরুষ ভোরে ভারতের উদ্দেশে রওনা দেয়। পথে জাটিভাঙ্গায় সন্ধ্যা নেমে আসায় ক্লান্ত মানুষ নারী ও শিশুদের কথা ভেবে জাটিভাঙ্গায় রাত্রিযাপন করেন। কিন্তু ২৩ এপ্রিল সকালেই রাজাকারদের মাধ্যমে খবর পেয়ে পাকিস্তানি সেনারা চলে আসে জাটিভাঙ্গায়। সেখানে সবাইকে লাইনে দাঁড় করিয়ে মেশিনগানের গুলিতে হত্যা করা হয়। হত্যাযজ্ঞ চলে বিকেল পর্যন্ত্ম। সেনারা চলে গেলে রাজাকাররা পাশের নদীর পাড়ে লাশ ফেলে মাটি চাপা দেয়। বিভীষিকাময় সেই দিনের কথা মনে হলে এখনো কান্নায় ভেঙে পড়েন ভুক্তভোগীরা।

ঠাকুরগাঁও সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ড বদরুদ্দোজা বদর বলেন, জাটিভাঙ্গা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত রাজাকার ও তাদের সন্তানরা এখনো নানা রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডে যুক্ত। তাদের নামের তালিকা জেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলেও জেলা পর্যায়ে এখনো বিচার কর্যক্রম শুরু হয়নি। তাই দ্রুত জেলা পর্যায়ে রাজাকারদের বিচার সম্পন্ন করা হোক।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!