বাবুগঞ্জের ইউপি চেয়ারম্যান বহিস্কৃত

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারী ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নূরে আলম বেপারীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সঙ্কটের সময় তার বিরুদ্ধে জাটকা নিধনে বিরত থাকা জেলেদের জন্য সরকার কর্তৃক বরাদ্দকৃত ভিজিএফ চাল আত্মসাতপূর্বক কালোবাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে বিধিবহির্ভূতভাবে নিজ বাড়িতে মজুদ রাখার দায়ে বরিশাল জেলা প্রশাসক স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ৩৪(৪) ধারা অনুযায়ী ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলম বেপারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করেন। গত ২৩ এপ্রিল বর্ণিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার ২নং কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরে আলম বেপারীকে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ৩৪(১) ধারা অনুযায়ী তার পদ থেকে সাময়িক বরখাস্থ করা হয়েছে।

একই সময় তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশে কেন তাকে চূড়ান্তভাবে তার পদ থেকে অপসারণ করা হবে না তার জবাব পত্র প্রাপ্তির ১০ কার্যদিবসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগে প্রেরণের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ইতিপূর্বে ত্রাণ বিতরণে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান সমূহের জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দেন এবং এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে অফিস আদেশ জারি করা হয়। এদিকে ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলমের বহিষ্কারের সংবাদে তার নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, জেলেদের নামে বরাদ্ধকৃত চাল আতœসাত, ভিজিডি, কর্মসৃজনসহ সরকারের ত্রাণসহায়তার চাল প্রতিবারই নিজে আত্মসাত করে কালো বাজারে বিক্রি করেছেন তিনি। এছাড়াও বছরের পর বছর বাবুগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন নদনদীতে অবৈধ্যভাবে বালু উত্তোলন করে বিপুল অর্থ-সম্পদের মালিক হয়েছেন। সাধারণ মানুষের আবাদী জমি জোরপূর্বক দখল করে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন বিহীন নির্মান করেরেছন অবৈধ ইটভাটা। এ কারণে স্থায়ী ভাবে তাকে বহিস্কার করে সরকারের ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনার দাবী স্থানীয়দের ।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ এপ্রিল ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলমের বাড়ি থেকে জেলেদের জন্য বরাদ্দকৃত চালের ১৮৩ বস্তা চাল উদ্ধার করেন র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা। এ ঘটনায় কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরে আলমের বিরুদ্ধে র‌্যাবের পক্ষ থেকে রাতেই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বর্তমানের মামলায় তিনি পলাতক রয়েছেন।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!