ওসির নামে ফেসবুকে মিথ্যাচার, দুই ছাত্রলীগ নেতা আটক

নিজস্ব প্রতিনিধি

চাঁদপুরে ফরিদগঞ্জ থানার ওসির বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর পোস্ট। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকালে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরে ফরিদগঞ্জ থানায় প্রেসব্রিফিং করেছে পুলিশ। পরে গ্রেপ্তারকৃত দুইজনকে অধিকর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশের হাতে দেওয়া হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, ছাত্রলীগের দুই নেতা শাহপরাণ রাব্বী ও মামুন হোসেন রুবেল।

ফরিদগঞ্জ থানার ভারাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রকিব জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার জেরিন আফরিন রুমা নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে তার বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ এবং আপত্তিকর মন্তব্য করে পোস্ট দেওয়া হয়। বিষয়টি অল্প সময়ের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। ফলে এই নিয়ে আলোচনা ও সমালোচনা শুরু হয়। যার প্রেক্ষিতে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলিশ ফেসবুকে পোস্টকারীকে খুঁজতে শুরু করে। এরপ্রেক্ষিতে ফরিদগঞ্জ উপজেলার কালিরবাজারে মিতু কম্পিউটার এন্ড ট্রেনিং সেন্টার থেকে কালিরবাজার কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মামুন হোসেন রুবেলকে (২৩) প্রথমে আটক করে থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ। পরে আটককৃতের স্বীকারোক্তিতে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি শাহপরাণ রাব্বীকে (২৪) আটক করা হয়। এ সময় তাদের দুইজনকে থানায় নিয়ে পৃথকভাবে জিজ্ঞাসা করা হলে তারা স্বীকার করে যে, মূলত মামুন হোসেন রুবেল জেরিন আফরিন রুমা নামে ভুয়া আইডি খুলে। পরে তার আরেক সহযোগী শাহপরাণ রাব্বীর পরামর্শে থানার ওসি আবদুর রকিবের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করে আপত্তিকর পোস্ট দেয়।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুর হোসেন মামুন জানান, শুক্রবার বিকেলেই গ্রেপ্তারকৃত এই দুইজনের একজন রুবেলকে চাঁদপুরে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. কফিলউদ্দিনের আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় ঘটনার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে সে। পরে আদালতের নির্দেশে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় তাকে। তবে গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আরো জানান, অসুস্থ থাকায় রাব্বী নামে অন্যজনের জবানবন্দি নেওয়া যায়নি।

আজ শুক্রবার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া এই মামলার তদন্ত করছেন, গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. মহিউদ্দিন।

পুলিশের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ফরিদগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন আওয়ামলীগ নেতা সোহেল খান। ওই নির্বাচনে হেরে যান তিনি। তবে হেরে যাবার জন্য দায়ী করা হয় ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আবদুর রকিবকে। ফলে পরাজিত প্রার্থীর ভাতিজা শাহরপাণ রাববী এবং তার সহযোগীকে দিয়ে প্রতিশোধ নিতে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ওসির বিরুদ্ধে কুরুপিপূর্ণ এবং আপত্তিকর পোস্ট দেয় তারা। এ ছাড়া আরো কয়েকটি কারণ ছিল বলেও জানা গেছে।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!