কবর খোঁড়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ৭

নিজস্ব প্রতিবেদক

সাতক্ষীরা তালায় কবর খোঁড়াকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে ৭ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার দুপুরে তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের জেঠুয়া গ্রামে। গুরুতর আহত ২ জনকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সরেজমিনে জানা যায়, জেঠুয়া গ্রামের মৃত মোমিন শেখের পুত্র নুরআলী (৫০) দীর্ঘ দু-বছর যাবৎ রক্তশুণ্যতাসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত ছিলেন। গত ১৫ মে সকাল ৯টার দিকে তিনি নিজ বাসভবনে মারা যান। দুপুরে মৃতের পারিবারিক কবরস্থানে কবর খোঁড়ার সময় প্রতিপক্ষর লোকজন কবর খুড়তে বাঁধা প্রদান করে, এবং খোড়া কবরটিতে কলাগাছ রেখে ভরাট করে দেয় প্রতিক্ষকরা। এ নিয়ে কবরস্থানে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় কবর খুঁড়তে আসা স্থানীয় প্রতিবেশী ফয়েজউদ্দিন (৫৫), রেয়াজউদ্দিন (৬০), বজলু শেখ (৪৫),গফ্ফার সেখ (৫২), আমজাদ শেখ (৫৩), মিজানুর জোর্য়াদ্দার (৫০),মহাব্বত শেখ (৫৫) সহ ১০/১২ জনকে পিটিয়ে জখম করে প্রতিক্ষরা। এ ঘটনায় গুরুতর আহতদের উদ্ধার করে ২ জনকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করে এলাকাবাসী। বর্তমানে আহতরা তালা হাসপাতালে ভর্তি আছে বলে জানান এলাকাবাসী।

সদ্য বিধবা নুরআলীর স্ত্রী ফজিলা বেগম (৪০) জানান, একই গ্রামের রহমত আকুঞ্জির ছেলে জুলফিকার ও ওজিয়ার গংদের সাথে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। স্বামীর ওসিয়াত অনুযায়ী মৃত্যুর পর তার মা-বাবার পাশে কবর খোঁড়া শুরু করেন প্রতিবেশীরা। এ সময় হঠাৎ জুলফিকার ও ওজিয়ার গংরা এসে কবর খোঁড়া বন্ধ করে দেন।এ ঘটনায় কবর খুড়তে আসা প্রতিবেশীরা প্রতিবাদ করলে তাদের উপর এই হামলা করে জুলফিকার ও ওজিয়ার গংরা। বিষয়টি তাৎক্ষনিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ থানা প্রশাসনকে অবহিত করলে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন সরেজমিন উপস্থিত হয়ে লাশ দাফন সম্পন্ন করেন।

এ ব্যাপারে তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন জানান, খবর পেয়ে আমি সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়েছিলাম।এক জন মৃত ব্যক্তির লাশ দাফনের জন্য কবর খুড়তে বাধা বা সংঘর্ষের ঘটনাটি সত্যিই অমানবিক।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!