টাঙ্গাইলে করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু ২, নতুন আক্রান্ত ১৬

টাঙ্গাইলে সোমবার দুই জন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন, একদিনে নতুন ১৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

সোমবার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান নতুন আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়ালো ১৮১ জনে।

এদিকে নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নাগরপুর উপজেলায় তিনজন, ধনবাড়ীতে তিনজন, বাসাইলে একজন, মধুপুরে দুজন, সদরে একজন, ঘাটাইলে চারজন ও কালিহাতীতে দুজন রয়েছে।

সিভিল সার্জন অফিস থেকে জানা যায়, গত ২৮ মে বৃহস্পতিবার ২২৭ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। সোমবার ফলাফলে ১৬ জনের পজেটিভ আসে। আক্রান্তদের মধ্যে নাগরপুরের এসিল্যান্ড রয়েছেন।

এ পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে চারজন মারা গেছেন, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৬ জন এবং চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৩১ জন। এছাড়া জেলা থেকে ঢাকায় পাঠানো ৫২৫৪ টি নমুনার মধ্যে ৪৮০০ টি নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। ২৯, ৩০, ৩১ মে এবং ১ জুনের মোট ৪৫৪টি নমুনার রিপোর্ট আসেনি। হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন ১৮১৩ জন।

এদিকে আজ সোমবার জেলার ভূঞাপুর ও কালিহাতীতে দুজন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গিয়েছেন বলে জানা গেছে।

ভূঞপুরের গোবিন্দাসী ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু জানান, উপজেলার বিলচাপড়া গ্রামের চান মাহমুদের ছেলে খাজা নাজিম উদ্দিন তালুকদার (৬৫) ঢাকায় শ্যামলী পিসি কালচারে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সেখানে সর্দিকাশি ও জ্বরে ভুগেন। রোববার অসুস্থতা বোধ করলে রাতে একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করে বাড়ি আসেন। ভোর রাতেই তিনি মারা যান। পরে স্থানীয়রা লাশ দাফনে বাধা দিলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ইসলামী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় বিলচাপড়া কবরস্থানে আজ দুপুরে দাফন করা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মহীউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

অন্যদিকে কালিহাতী উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের নগরবাড়ী গ্রামের ওমর আলী (৪০) নামের ব্যক্তি আজ সকালে মারা গেছেন। তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট ছিল। তিনি স্থানীয় একটি স মিলে শ্রমিকের কাজ করতেন। কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাইদুর রহমান বলেন, মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!