প্রেমের ফাঁদে ফেলে কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগ

জার্নাল বাংলা ডেস্ক

সিলেটের বিশ্বনাথে এক কিশোরীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঈদুল ফিতরের দিন (২৫ মে) রাতে উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নের মাহতাবপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ ও আরো ২/৩ জনকে অজ্ঞাতনামা অভিযুক্ত করে সোমবার বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নের বশিরপুর গ্রামের আশিক মিয়ার ছেলে মিজান (২০), একই গ্রামের বারিক মিয়ার ছেলে ইমন আহমদ জসিম (২১) ও আব্দুল মিয়ার ছেলে আফিজ (২০)।

থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগে বাদী উল্লেখ করেন, কিছুদিন পূর্বে ভিকটিম কিশোরীর সাথে অভিযুক্ত মিজানের পরিচয় হয়। সেই সুবাদে মিজানের সাথে মোবাইল ফোনে প্রায়ই কথা হতো কিশোরীর। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঈদের দিন (২৫ মে) দিবাগত রাত ১২টায় কিশোরীকে ফোন করে দেখা করতে বলে মিজান। তখন সে (কিশোরী) ঘর থেকে বের হলে মিজান ও তার সহযোগী জসিম-আফিজসহ আরো ২/৩ জন যুবক তাকে ঝাপটে মুখ চেপে ধরে। এরপর তারা মেয়েটিকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী নির্জন স্থানে নিয়ে যায় এবং জোরপূর্বক নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে তাকে সজ্ঞাহীন করে সারা রাত পালাক্রমে পাশবিক নির্যাতন করা হয়। ভোরে বাড়ির এক বাসিন্দা মেয়েটিকে উলঙ্গ, রক্তাক্ত ও সজ্ঞাহীন অবস্থায় দেখতে পেয়ে তাকে ডেকে তুলে পরিচয় জানতে পারেন।

এ সময় তিনি মেয়েটির শরীর ঢেকে তার নিজ বাড়িতে পৌঁছে দেন। বাড়িতে ফেরার পর মেয়েটির কাছ থেকে বিষয়টি পরিবারের লোকজন জানার পর তারা তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করেন।

মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার ওসি শামীম মুসা বলেন, মামলাটি তদন্ত করবে ডিবি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!