গাইবান্ধার সাঘাটায় যমুনার পানি বৃদ্ধির ফলে ভাঙন

সরকার জুয়েল : বর্ষা মৌসুম শুরু না হতেই গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধির ফলে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। নদীগর্ভে তলিয়ে যেতে শুরু করেছে নদীর তীরবর্তী ভরতখালী ইউনিয়নের ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি। জরুরিভাবে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড নদীতে বালুর জিও ব্যাগ ফেলার কাজ করলেও থামানো যাচ্ছে না ভাঙন। ভাঙন আতঙ্কে ইতোমধ্যেই সহস্রাধিক পরিবার বাড়িঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। ভয়াবহ নদী ভাঙনের কবলে পরে প্রায় সর্বশান্ত হয়ে পরার উপক্রম হয়েছে দুই সহস্রাধিক জেলে সম্প্রদায়ের পরিবার ।
গতকাল সোমবার যমুনা নদীর ডানতীর বাঁধের সংস্কার কাজ এবং নতুন করে কোন সংস্কারের প্রয়োজন আছে কি না, সে ক্ষেত্রে পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুস শহিদ নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন।
ভাঙ্গনের বাস্তব চিত্র নীতি নির্ধারক মহলে প্রেরন পূর্বক ভাঙ্গন কবলিত এলাকা দক্ষিণ উল্যার মাঝিপাড়া ও আদর্শ গ্রামে নদীর দুরুত্ব ১৫০ মিটার অবস্থান হওয়ায় ওই স্থানে শ্রীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে স্থানীয় বসতবাড়ির লোকজনদের আশ্বস্ত করেন তিনি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোকলেছুর রহমান, ভরতখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছামসুল আজাদ শীতলসহ অন্যান্যরা।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!