ঘুমের ওষুধ খাইয়ে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করা হয় স্ত্রীকে

রানা

নাটোরের লালপুরে মোহরকয়া গ্রামে পারিবারিক কলহের কারণে স্ত্রীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দেয় স্বামী আব্দুল জব্বার। গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যার কথা স্বীকার করে এবং আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা এসব তথ্য জানান।

লিটন কুমার সাহা জানান, গত ১৭ জুলাই উপজেলার মোহরকয়া গ্রামের আব্দুল জব্বারের বাড়ির পাশে পুকুর থেকে জব্বারের স্ত্রী স্মৃতি খাতুনের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় স্মৃতির পিতা সেলিম আলী বাদী হয়ে মোহরকয়া গ্রামের ইসাহাক প্রামাণিকের ছেলে আব্দুল জব্বারকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর পুলিশ তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে লালপুর থানার পুরাতন ঈশ্বরদী এলাকা থেকে গত ২১ জুলাই আব্দুল জব্বারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জব্বার স্বীকার করে, পারিবারিক কলহের কারণে সে স্মৃতিকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে খাবার স্যালাইনের সাথে ১০টি ঘুমের ট্যাবলেট গুঁড়ো করে মিশিয়ে দেয়। এরপর স্মৃতি ঘুমিয়ে পড়লে তার মুখে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে লাশ গোপন করার জন্য পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়। সে আদালতে হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!