গাবতলী-নবীনগর সড়ক হবে ১০ লেন

বাবলু ইসলাম অর্ণব, সাভার(ঢাকা)

ওবায়দুল কাদের বলেন, পরিবহনে যত দিন শৃঙ্খলা ফিরে না আসবে, তত দিন যতই উন্নয়ন কাজ হোক না কেন, তাতে কোনো লাভ হবে না। আর চার লেন, আট লেন মহাসড়ক কোনো কাজে আসবে না।

সরকার গাবতলী সেতু আট লেনে উন্নীতকরণের কাজ শুরু করতে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে গাবতলী থেকে নবীনগর পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার সড়ক ১০ লেনে উন্নীতকরণ করা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে সাভারের আমিনবাজার এলাকায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চার লেনের দ্বিতীয় সালেহপুর সেতু উদ্বোধন করার সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব তথ্য জানান।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের আনন্দের সাথে জানাতে চাই, গাবতলী থেকে নবীনগর পর্যন্ত মহাসড়ক সরকার ১০ লেনে উন্নীত করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ইতোমধ্যে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। এখন বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান নির্বাচনের কাজ চলমান রয়েছে।’

কাদের বলেন, ‘গাবতলী সেতুটি অত্যন্ত ব্যস্ত একটি সেতু। এই সেতুটি খুব একটা ভালো অবস্থানে নেই। এটি আমরা সাজাতে চাই। সে কারণে বাংলাদেশের প্রথম আট লেনের সেতু হতে যাচ্ছে গাবতলী সেতু। আমরা অবিলম্বে এই কাজ শুরু করব।’

মন্ত্রী জানান, নবীনগর থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত মহাসড়ক জাপানের অর্থায়নে জিটুজি ভিত্তিতে চার লেনে উন্নীত করা হবে। এ লক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক কার্যক্রম চলছে। এ ছাড়া সাভার এলাকায় মহাসড়কের ওপর যে সব বাজার রয়েছে, সে সব বাজারের সামনের যানজট নিরসনে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

কাদের বলেন, ‘পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরে না আসা পর্যন্ত যতই উন্নয়ন কাজ হোক না কেন, তাতে কোনো লাভ হবে না। আর চার লেন, আট লেন মহাসড়ক কোনো কাজে আসবে না, যদি আমরা সড়কের ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বাড়াতে না পারি। গুরুত্বপূর্ণ সড়ক-মহাসড়কের সৌন্দর্য রক্ষায় অবিলম্বে ব্যানার, ফেস্টুন ও সাইনবোর্ড সরিয়ে ফেলতে হবে।’

গুণগতমান বজায় রেখে সড়কের নির্মাণ কাজ করার নির্দেশনা দিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, সড়কে চলমান যেসব কাজ চলছে সেগুলো বর্ষার আগেই শেষ করতে হবে।

বিএনপির সমালোচনা করে কাদের বলেন, কর্মসূচি ঘোষণা দিয়ে বিএনপি নেতারা এখন বলছেন সংগঠনকে গুছিয়ে তারপর আন্দোলনে নামবেন। জনগণ বুঝে গেছে বিএনপির আন্দোলনের সক্ষমতা কতটুকু।

তাদের এমন অজুহাতেই এক যুগ পেরুলো, কর্মীরাও হতাশ। গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেই তারা সীমাবদ্ধ।

আন্দোলন কবে হবে তা বিএনপি নেতাদের কাছে জানতে চান কাদের। তিনি বলেন, আন্দোলন হবে কোন বছর। তাদের আন্দোলনের ঘোষণা শুনতে শুনতে জনগণও এখন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। বিএনপির আন্দোলনের লক্ষ্য নির্ধারণ করতেই ১২ বছর চলে গেল ।

বিএনপি বেগম জিয়ার মুক্তি চেয়ে সরকারের অন্ধ সমালোচনা এবং সরকার পতনকেই নিজেদের কৌশল হিসেবে নিয়েছিল। জনগণও এখন তাদের উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দিহান। দলীয় নেত্রীর মুক্তির জন্য তাদের আগ্রহ যতটা, তার চেয়ে বেশি আগ্রহ সরকারবিরোধিতায়। বিএনপি নেতারা কী চান, তা তারাও জানেন না।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আওয়ামী লীগ কোনো পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে বিশ্বাসী নয়। পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী আওয়ামী লীগ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে সভা-সমাবেশ, গণসংযোগ ঘোষণা করেছে। এগুলো কোনো পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি নয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শামীম আল মামুন, সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আরা নিপা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব, ঢাকা জেলা উত্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ-হিল কাফী ও সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এফ এম সায়েদসহ অনেকে।

Facebook Comments
আরো পড়ুন
error: Content is protected !!